Ajker Kashiani
অন্যান্য

কাশিয়ানীতে অধ্যক্ষের দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশ; তিন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা

প্রতিনিধি গোপালগঞ্জ:- মাদ্রাসা অধ্যক্ষের অনিয়ম-দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশ করায় গোপালগঞ্জে তিন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। 

মামলায় দৈনিক যুগান্তরের সম্পাদক সাইফুল আলম, কাশিয়ানী উপজেলা প্রতিনিধি মো. লিয়াকত হোসেন লিংকন ও দৈনিক প্রতিদিনের সংবাদের প্রতিনিধি মো. আছাদুজ্জামানকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। 

গত বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) গোপালগঞ্জ আদালতে মামলাটি দায়ের করেন উপজেলার ডোমরাকান্দি নুরুল ইসলাম ফাযিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মো জাকারিয়া।

মামলার অভিযোগের বিষয়টি গোপালগঞ্জ ডিবির ওসিকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালতের বিচারক।

এর আগে ২৫ ফেব্রুয়ারি দৈনিক যুগান্তরে ‘অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এতে অধ্যক্ষ ক্ষিপ্ত হয়ে কতিপয় সাংবাদিকের প্ররোচনায় চাঁদাবাজির অভিযোগ এনে মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় অভিযোগে উল্লেখ করেন, অধ্যক্ষের বাড়িতে গিয়ে ৪ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়েছে। না পেয়ে তাকে গালিগালাজ ও সংবাদ প্রকাশ করে সম্মানহানি করা হয়েছে।

এ বিষয় ভুক্তভোগী দৈনিক যুগান্তরের সাংবাদিক লিয়াকত হোসেন বলেন, ‘ডোমরাকান্দি নুরুল ইসলাম ফাযিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মো জাকারিয়ার বিরুদ্ধে বিধিবহির্ভূতভাবে তার নিয়োগ, মাদ্রাসার গাছ কাটা, স্বাক্ষর জালিয়াতি, বরাদ্দের চাল ও মাদ্রাসা তহবিলের অর্থ আত্মসাৎ, স্বজনপ্রীতিসহ নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ এনে মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর, মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড, আরবি বিশ্ববিদ্যালয় ও দুদকে লিখিত অভিযোগ করেন এলাকাবাসী। এ অভিযোগের ভিত্তিতে আমি সংবাদ পরিবেশন করেছি। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে কতিপয় সাংবাদিকের প্ররোচনায় আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছেন। তার বিরুদ্ধে আমি যে সংবাদ করেছি তার সব প্রমাণ আমার কাছে সংরক্ষিত আছে। অধ্যক্ষ নিজের দুর্নীতিকে আড়াল করতে এবং সাংবাদিকদের হয়রানী করার উদ্দেশ্যেই মামলাটি করেছেন। আমি এই মামলা দ্রæত প্রত্যাহারের দাবি জানাই।’

এ বিষয় কাশিয়ানী সাংবাদিক পরিষদের সভাপতি মো. ফায়েকুজ্জামান বলেন, ‘একজন সংবাদকর্মী যখন অনিয়ম-দুর্নীতির সংবাদ করেন, তখন অবশ্যই যাচাই-বাছাই ও সব ধরণের প্রমাণাদি সংগ্রহ করেই করেন। এছাড়া এ মামলায় যেহেতু সম্পাদককে অভিযুক্ত করা হয়েছে। তাই বোঝাই যাচ্ছে- এটি একটি মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলা।’

তিনি আরও বলেন, ‘সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করতে না দেয়ার জন্যই এ মামলাটি করা হয়েছে। আমি সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানাই।’